শিশুনাগ বংশ ও নন্দ বংশের প্রতিষ্ঠাতা || Indian History

শিশুনাগ বংশ ও নন্দ বংশের প্রতিষ্ঠাতা || Indian History

Indian History

• হর্ষঙ্ক বংশের পর শিশুনাগ বংশ মগধের সিংহাসন দখল করে।

• শিশুনাগ বংশের প্রতিষ্ঠাতা শিশুনাগ হর্ষঙ্ক বংশের শেষ রাজা নাগদাসকে হত্যা করে মগধে নতুন রাজবংশের সূচনা করেন।

• শিশুনাগ বংশের রাজধানী ছিল বৈশালী। শিশুনাগ বংশের প্রতিষ্ঠাতা শিশুনাগ তার রাজধানীর রাজগৃহ থেকে প্রথমে গিরিব্রজ ও পরে বৈশালীতে স্থানান্তরিত করেন।

• শিশুনাগের মৃত্যুর পর মগধের সিংহাসনে বসেন তাঁর পুত্র কালাশোক বা কাক বর্ণ। শিশুনাগ বংশের শেষ শাসক ছিলেন নন্দীবর্ধন।

• ৩৮৩ খ্রিস্টপূর্বে কালাশোকের পৃষ্ঠপোষকতায় দ্বিতীয় বৌদ্ধ পরিষদ(বৌদ্ধ সংগীতি) বৈশালীতে সংঘটিত হয়েছিল।

• শিশুনাগ বংশের পর মগধে নন্দবংশ শাসন করেছিল।

• নন্দবংশের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন মহাপদ্মনন্দ। তাঁর মাধ্যমেই মগধের সর্বাধিক বিস্তার ঘটেছিল। পুরাণে মহাপদ্মনন্দকে ‘সর্বক্ষত্রিয়োচ্ছেত্তা’, ‘দ্বিতীয় পরশুরাম’ ও ‘একরাট’ বলে অভিহিত করা হয়েছে। মহাপদ্মনন্দ ‘উগ্ৰসেন’ নামেও পরিচিত ছিল।

• পুরাণ, জৈন ও বৌদ্ধ গ্ৰন্থমতে নন্দরাজবংশ ছিল মগধের প্রথম অক্ষর প্রিয় রাজবংশ।

• মহাপদ্মনন্দ ও তার আট জন পুত্রকে নবনন্দ বলে অভিহিত করা হয়। মহাপদ্মনন্দের পর তার আট পুত্র পরপর সিংহাসনে বসেছিলো।

• নন্দ বংশের শেষ রাজা ছিলেন ধননন্দ। তিনি কঠোর শাসক ছিলেন এবং ধননন্দের সেনাপতির নাম ছিল ভদ্রশাল।

• উত্তর ভারতের প্রথম ঐতিহাসিক সম্রাট ছিলেন মহাপদ্মনন্দ।

• আলেকজান্ডার যখন ভারতবর্ষ আক্রমণ করেন তখন মগধের রাজা ছিলেন ধননন্দ। আলেকজান্ডার ভারতে ছিলেন 19 মাস।

 

প্রতিদিন এই ধরনের পোস্ট পেতে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ও টেলিগ্ৰাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান 

আরও পড়ুন:- হর্ষঙ্ক বংশের প্রতিষ্ঠা

Leave a comment